সাফা পাহাড়ে হিজরত

হে নবী, তোমার নিকটা—গীয়দের আল্লাহর আযাব সম্পর্কে ভয় প্রদর্শন করো।্ এ আয়াত নাযিল হওয়ার পর নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাফা পাহাড়ের ওপর আরোহণ করে আওয়ায দিলেন, হে বনী ফেহর, হে বনী আদী। এ আওয়ায শুনে কোরায়শের সকল লোক একত্রিত হয়। যিনি যেতে পারেননি তিনি বিষয়টা জানার জন্যে একজন প্রতিনিধি পাঠিয়েছেন। কোরায়শরা হাযির হয়, আবু লাহাবও তাদের সঙ্গে ছিলো। এরপর তিনি বললেন, তোমরা বলো, যদি আমি তোমাদের বলি, পাহাড়ের ওইদিকের প্রান্তরে একদল ঘোড়সওয়ার আ—গগোপন করে আছে, ওরা তোমাদের ওপর হামলা করতে চায়, তোমরা কি সে কথা বিশ্বাস করবে? সবাই বললো, হাঁ বিশ্বাস করবো, কারণ আপনাকে আমরা কখনো মিথ্যা বলতে শুনিনি। আপনার সম্পর্কে আমাদের সত্য বলার অভিজ্ঞতাই রয়েছে। নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তবে শোনো, আমি তোমাদের এক ভয়াবহ আযাবের ব্যাপারে সাবধান করতে প্রেরিত হয়েছি। আবু লাহাব বললো, তুমি দিনভর ধ্বংস হও। তুমি আমাদের একথা বলার জন্যেই কি এখানে সমবেত করেছো?
আবু লাহাব একথা বলার পর আল্লাহ তায়ালা সূরা লাহাব নাযিল করেন। এতে বলা হয়, আবু লাহাবের দ্ুিট হাত ধ্বংস এবং সে নিজেও ধ্বংস হোক।
এ ঘটনার আরেক অংশ ইমাম মুসলিম তাঁর সহীহ গ্রন্থে। হযরত আবু হোরায়রা (রা.)-এর বর্ণনা করেছেন। তিনি বলেন, ষ্ক্রনিকটা—গীয়দের (আল্লাহর আযাব সম্পর্কে) ভয় প্রদর্শন করে এ আয়াত নাযিল হওয়ার পর রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাধারণ ও বিশেষভাবে আওয়ায দেন। তিনি বললেন, ‘‘হে কোরায়শ দল, তোমরা নিজেদের জাহান্নাম থেকে রক্ষা করো। হে বনী ক্বা, নিজেদের জাহান্নাম থেকে রক্ষা করো। হে মোহাম্মদের মেয়ে ফাতেমা, নিজেকে জাহান্নাম থেকে রক্ষা করো। আমি তোমাদের আল্লাহর পাকড়াও থেকে রক্ষার কিছুমাত্র ক্ষমতা রাখি না। যেহেতু তোমাদের সাথে আমার বংশ ও আত্বীয়তার সম্পর্ক রয়েছে, যা  আমি তার অন্তর্নিহিত সজীবতা অনুযায়ী সজীব করবো।

বিস্তারিত: আর রাহীকুল মাখতুম

প্রকাশক: আল কোরআন একাডেমী পাবলিকেশন্স

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY