মক্কায় তৈরী হচ্ছে সীরাত বিশ্বকোষ মিউজিয়াম

0
891

 হযরত মুহাম্মদ সা: -এর জীবনের উল্লেখযোগ্য ঘটনাবলি নিয়ে মক্কার ২০ কিলোমিটার দূরে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে ‘আসসালামু আলাইকা আইয়্যুহাননাবি’ নামক বিশাল এক মিউজিয়াম। হযরত মুহাম্মদ সা: -এর জীবনী নিয়ে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের এ যাবৎকালের সর্ববৃহৎ বিশ্বকোষ। ৬০ খণ্ডের এ বিশ্বকোষে রাসূল সা: -এর জীবনের সব ঘটনাবলি স্থান পাচ্ছে।

দৈনিক নয়াদিগন্তের বরাত দিয়েে এ সংবাদ প্রকাশ করেছে ইসলামী অনলাইন মিডিয়া।

বিশ্বকোষ রচনার কাজে নেতৃত্ব দিচ্ছেন প্রখ্যাত সিরাত বিশেষজ্ঞ কুরাইশ বংশধারার পণ্ডিত ড. নাসের বিন মিসফার আল কুরাইশি আল জাহরামি। কয়েক বছর ধরে পবিত্র কুরআন ও হাদিস থেকে রাসূল সা: -এর জীবনের সব দিক নিয়ে এ বিশ্বকোষ ও মিউজিয়াম সাজানো হয়েছে। বিশ্বকোষ রচনার কাজে ব্যবহার করা হয়েছে আড়াই শ’ কলম। মিউজিয়ামটি সাজানো হয়েছে বিশ্বকোষেরই আলোকে।

সৌদি বাদশাহর আমন্ত্রণে বিভিন্ন দেশ থেকে আগত অতিথিদের এ মিউজিয়াম পরিদর্শন করানো হয়। মিউজিয়ামের শুরু হয়েছে মহান আল্লাহর এই জাগতিক সৃষ্টির ধরন ও প্রক্রিয়া নিয়ে। পবিত্র কুরআনে বর্ণিত ঘটনাবলি সেখানে স্থান পেয়েছে। রাসূল সা: -এর সময়কালে মক্কা নগরীর অবস্থান, তার বংশ ও আত্মীয় পরিচিতি তুলে ধরা হয়েছে। ৫০টি বৃক্ষের আকারে তা সাজানো হয়েছে। বিশ্বব্যাপী রাসূল সা: -এর অবদান ও কার্যক্রম, সহস্রাধিক ঘটনার সংক্ষিপ্ত বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে মিউজিয়ামে। পবিত্র কুরআন ও হাদিসে উল্লিখিত এক হাজার ঘটনার বিবরণ রয়েছে। রাসূল সা: -এর মক্কা থেকে মদিনায় হিজরতের কাহিনী বর্ণনা করা হয়েছে। হিজরতের ঘটনাবলিসহ তখনকার রাস্তা, পরিবেশ অবিকলভাবে ছবির মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে। কুরআনে বর্ণিত নবী-রাসূলদের পরিচিতি ও কার্যক্রম, হজরত মুহাম্মদ সা: -এর পোশাক-পরিচ্ছদ, যুদ্ধে ব্যবহৃত অস্ত্র, গম পেষার যাঁতা, খেজুর পাতার মাদুর, প্রভৃতি জিনিসপত্রের ড্যামি রাখা হয়েছে মিউজিয়ামে।

ড. নাসের জাহরামি আগত অতিথিদের জানান, পুরনো প্রযুক্তির সাথে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে সর্বজনীন শাশ্বত এবং মানবিক এই প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে আগত প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন মদিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কলার মহিউদ্দিন ফারুকী। উপস্থাপনা করেন মিউজিয়াম পরিচালক ইয়াসির মাহমুদ।

ড. নাসের জাহরামি জানান, সৌদি আরবের বাইরেও প্রকল্প সম্প্রসারণের পরিকল্পনা রয়েছে। বিশ্বকোষ ছাপার কাজ শিগগিরই শেষ হবে বলে জানান তিনি। মিউজিয়াম পরিদর্শনকালে রাসূল সা: -এর জীবনঘনিষ্ঠ বিষয়াদি দেখে অনেকেই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।

 

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY