সৌদিতে আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতার সমাপনী অনুষ্ঠিত

0
337

সৌদি আরবে ৩৭তম আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতার সমাপনী অনুষ্ঠান ৯ম নভেম্বর অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবারো বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রতিযোগিরা এতে অংশ নিয়েছে।

মক্কা শরীফে সৌদি আরবের আওকাফ ও ইসলামী বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক ৩৭তম আন্তর্জাতিক কুরআন হেফজ, তিলাওয়াত এবং তাফসীর প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘মালিক আবদুল আজিজ’ নামে প্রসিদ্ধ এ প্রতিযোগিতা প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরের আল্লাহর ঘর ক্বাবা’র প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং আজ (৯ম নভেম্বর) বিকালে এ প্রতিযোগিতার সমাপনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। বার্তা সংস্থা ইকনা।
গত ৭ম নভেম্বর এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিশ্বের ৬৬টি দেশের ১২৪ জন প্রতিনিধি অংশগ্রহণে উক্ত প্রতিযোগিতার উদ্বোধন হয়।
প্রতিযোগিতার কমিটি জানিয়েছে, ৩৭তম আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় উত্তীর্ণগণ মদিনায় ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করার অধিকার দেওয়া হবে।
এ প্রতিযোগিতার বিচারক কমিটির প্রধান হিসেবে মদিনা কুরআনিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ‘হামাদ ইবনে আলী আল সাদিস’ নিয়োজিত হয়েছেন এবং সৌদি আরবের তায়েফ বিশ্ববিদ্যালয়ের ধর্মতত্ত্ব সহকারী অনুষদ ‘নাসের ইবনে সৌউদ আল কাছামী, আলজেরিয়া জমিয়ত উলেমা-ই ইসলাম কুরআন রিডিং স্কুলের প্রধান ‘খালিদ ইবনে আলী মুহাম্মাদ দাবানী’, নাইজেরিয়ার “সুলতান মোহাম্মদ মাছতু” নামক কুরআনিক গবেষণা কেন্দ্রের অধ্যাপক ‘মোহাম্মদ নাসের উসমান সাকতু’ এবং “মালয়েশিয়ার ইসলামী বিষয় অনুসরণ কেন্দ্রের সহকারী জেনারেল ম্যানেজার ‘আব্দুল করিম জাকারিয়া হারুন’ উপস্থিত ছিলেন।

সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতার সর্বকনিষ্ঠ প্রতিযোগীর হিসেবে অংশগ্রহণ করেছেন সোমালিয়ার ৯ বছরের শিশু ‘আবদুল সামাদ ইবনে ওমর মুহাম্মাদ’।

বার্তা সংস্থা ইকনা: সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত ৩৭তম আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতার সোমালিয়ার প্রতিনিধি হিসেবে অংশগ্রহণ করেছেন সেদেশের ৯ বছরের শিশু ‘আবদুল সামাদ ইবনে ওমর মুহাম্মাদ’।
৯ বছরের এ শিশু সম্পূর্ণ কুরআন হেফজ বিভাগে অংশগ্রহণ করার জন্য সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত ৩৭তম আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছেন। তিনি অত্যন্ত সূক্ষ্ম ভাবে পবিত্র কুরআন হেফজ করেছেন এবং তার শুদ্ধ উচ্চারণের ফলে অনেকেই আশ্চর্য হয়েছে।
সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতা সম্পর্কে সোমালি প্রতিনিধি ‘আবদুল সামাদ ইবনে ওমর মুহাম্মাদ’ বলেন: এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে অনেক যুবক একত্রিত হয়েছে এবং এ সুবাদে আমিও পবিত্র নগরী মক্কায় মসজিদুল হারামে উপস্থিত হয়েছি। নিকট থেকে মসজিদুল হারামে যিয়ারত করতে পেরে আমি অনেক আনন্দিত।
আবদুল সামাদ ইবনে ওমর মুহাম্মাদের কুরআনের শিক্ষক তার সাথে সৌদি আরবে গিয়েছেন। ৯ বছরের এ শিশু কুরআন হেফজ ধরে রাখার জন্য প্রতিদিন ১০ পারা কুরআন তেলাওয়াত করেন।
তিনি বলেন: সোমালিয়ায় এপর্যন্ত অনেক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছেন এবং প্রতিটি প্রতিযোগিতায় তিনি উত্তীর্ণ হয়েছেন।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY