বাদশাহ এবং আমীরদের রাসূল (স)এর দাওয়াত

0
696

বাদশাহ এবং আমীরদের রাসূল (স)এর দাওয়াত

চিঠি প্রেরণের সময়: ষষ্ঠ হিজরীর শেষ দিকে
চিঠির জন্য সীল মোহর:  এতে মোহাম্মদ, রসূল ও আল্লাহ এ শব্দ তিনটি খোদাই করা হয়েছিলো। আল্লাহ ১ম, রসূল ২য় এবং মোহম্মদ ৩য় লাইনে খোদাই করা হয়।
চিঠি লেখক ওপ্রেরণ: চিঠি লেখানোর পর রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অভিজ্ঞতাসম্পন্ন সাহাবীদের কয়েকজনকে চিঠিসহ বিভিন্ন দেশের বাদশাহর কাছে প্রেরণ করেন।
চিঠি প্রেরণ: সপ্তম হিজরীর ১লা মহররম তারিখে রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ সকল দূত প্রেরণ করেন।

এক. হাবশার বাদশাহ নাজ্জাশীর নামে
এ চিঠি নবী মোহাম্মদের পক্ষ থেকে হাবশার বাদশাহ আসহামার নামে। যিনি হেদায়াতের অনুসরণ এবং আল্লাহ তায়ালা ও তাঁর রসূলের ওপর বিশ^াস স্থাপন করবেন, তার ওপর সালাম। আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, এক অদ্বিতীয় আল্লাহ তায়ালা ব্যতীত এবাদাতের উপযুক্ত কেউ নেই, তাঁর স্ত্রী পুত্র কিছু নেই। আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, মোহাম্মদ আল্লাহর বান্দা ও রসূল। আমি আপনাকে ইসলামের দাওয়াত দিচ্ছি। কেননা আমি আল্লাহর রসূল। কাজেই ইসলাম গ্রহণ করুন, শান্তিতে থাকবেন। হে আহলে কেতাব, এমন একটি বিষয়ের প্রতি আসো, যা আমাদের এবং তোমাদের মধ্যে সমান। আমরা আল্লাহ ব্যতীত অন্য কারো এবাদাত করবো না, তাঁর সাথে কাউকে শরীক করবো না, আল্লাহ ব্যতীত অন্য কাউকে প্রভু হিসাবে স্বীকার করবো না। যদি কেউ মুখ ফিরিয়ে নেয়, তবে তাকে বলে দাও, সাক্ষী থাকো, আমি মুসলমান। যদি আপনি এ দাওয়াত গ্রহণ না করেন, তবে আপনার ওপর আপনার কওমের নাসারাদের সমুদয় পাপ বর্তাবে।

পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।
‘‘আল্লাহর রসূল মোহাম্মদের পক্ষ থেকে হাবশার বাদশাহ নাজ্জাশীর প্রতি। সালাম সেই ব্যক্তির ওপর যিনি হেদায়াতের অনুসরণ করেন। আমি আপনার কাছে মহান আল্লাহর প্রশংসা করছি, যিনি ব্যতীত কোন মাবুদ নেই। যিনি কুদ্দুস, যিনি সালাম, যিনি নিরাপত্তা ও শান্তি দেন, যিনি হেফাযতকারী ও তত্ত্বাবধানকারী। আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, ঈসা ইবনে মারইয়াম আল্লাহর রুহ এবং তাঁর কালেমা। আল্লাহ তায়ালা তা পূত পবিত্র সতী মারইয়ামের ওপর স্থাপন করেছেন। আল্লাহর রুহ এবং ফুঁ-এর কারণে হযরত মারইয়াম (আ.) গর্ভবতী হয়েছেন। যেমন আল্লাহ তায়ালা হযরত আদম আলাইহিস সালামকে নিজের হাতে তৈরী করেছিলেন। আমি এক অদ্বিতীয় আল্লাহ এবং তাঁর আনুগত্যের প্রতি পরস্পরকে সাহায্যের দাওয়াত দিচ্ছি। এছাড়া একথার প্রতিও দাওয়াত দিচ্ছি, আপনি আমার আনুগত্য কষ্পন এবং আমি যা কিছু নিয়ে এসেছি তার ওপর বিশ্বাস স্থাপন করুন। কেননা আমি আল্লাহর রসূল, আমি আপনাকে এবং আপনার সেনাদলকে সর্বশক্তিমান আল্লাহ রল্টুল আলামীনের প্রতি আহবান জানাচ্ছি। আমি তাবলীগ ও নসীহত করছি। কাজেই আমার তাবলীগ ও নসীহত কবুল কষ্পন। (পরিশেষে) সালাম সে ব্যক্তির ওপর, যিনি হেদায়াতের আনুগত্য করেন।

পরম করুণাময় ও অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।
আল্লাহর রসূল মোহাম্মদের নামে, নাজ্জাশী আসহামার পক্ষ থেকে।
হে আল্লাহর নবী, আপনার ওপর আল্লাহর পক্ষ থেকে সালাম, তাঁর রহমত ও বরকত নাযিল হোক। সেই আল্লাহর পক্ষ থেকে, যিনি ব্যতীত এবাদাতের উপযুক্ত কেউ নেই। অতপর, হে আল্লাহর রসূল, আপনার চিঠি আমার হাতে পৌছেছে। এ চিঠিতে আপনি হযরত ঈসা (আ.) সম্পর্কে উল্লেখ করেছেন। আসমান যমীনের মালিক আল্লাহর শপথ, আপনি যা কিছু উল্লেখ করেছেন হযরত ঈসা (আ.) এর চেয়ে বেশী কিছু ছিলেন না। তিনি সেরুপই ছিলেন আপনি যেরুপ উল্লেখ করেছেন। আপনি আমার কাছে যা কিছু লিখে পাঠিয়েছেন, আমি তা জেনেছি এবং আপনার চাচাতো ভাই ও আপনার সাহাবীদের মেহমানদারী করছি। আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, আপনি আল্লাহর সত্য ও খাঁটি রসূল। আমি আপনার কাছে বায়াত করছি, আপনার চাচাতো ভাইয়ের হাতে বায়াত করেছি এবং তার হাতে আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের জন্যে ইসলাম কবুল করেছি।

দুই. মিসরের বাদশাহ মোকাওকিসের নামে

পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।
আল্লাহর বান্দা ও তাঁর রসূল মোহাম্মদের পক্ষ থেকে মোকাওকিস আযম কিবতের নামে। তার প্রতি সালাম যিনি হেদায়াতের আনুগত্য করেন।
আমি আপনাকে ইসলামের দাওয়াত দিচ্ছি। ইসলাম গ্রহণ করুন, শান্তিতে থাকবেন। ইসলাম গ্রহণ করলে আল্লাহ তায়ালা আপনাকে দ্ুিট পুরস্কার দেবেন। আর যদি ইসলাম গ্রহণ না করেন, তবে কিবৎতের অধিবাসীদের পাপও আপনার ওপর বর্তাবে। হে কিবতীরা, ‘‘এমন একটি বিষয়ের প্রতি এসো যা আমাদের এবং তোমাদের জন্যে সমান। আমরা আল্লাহ তায়ালা ব্যতীত অন্য কারো এবাদাত করবো না এবং তাঁর সাথে কাউকে শরীক করবো না। আমাদের মধ্যে কেউ যেন আল্লাহ তায়ালা ব্যতীত অন্য কাউকে প্রভু হিসাবে না মানে। যদি কেউ এ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়, তবে বলে দাও, সাক্ষী থাকো, আমরা মুসলমান।

পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নাম শুরু করছি।
মোহাম্মদ ইবনে আবদুল্লাহর নামে মোকাওকিস আযিম কিবত-এর পক্ষ থেকে।
আপনার প্রতি সালাম। আমি আপনার চিঠি পাঠ করেছি এবং চিঠির বক্তব্য ও দাওয়াত আমি বুঝেছি। জানি, এখনো একজন নবী আসার বাকি রয়েছেন। আমি ধারণা করেছিলাম, তিনি সিরিয়া থেকে আবির্ভূত হবেন। আমি আপনার দূতের সম্মান করেছি। আপনার খেদমতে দুই জন দাসী পাঠাচ্ছি। কিবতীদের মধ্যে তাদের যথেষ্ট মর্যাদা রয়েছে। আপনার জন্যে কিছু পোশাক এবং সওয়ারীর জন্যে একটি খ”রও হাদিয়া পাঠাচ্ছি। আপনার প্রতি সালাম।

তিন. পারস্য সমন্দাট খসরু পারভেযের নামে
রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পারস্য সমন্দাট কেসরার কাছেও এই একখানি চিঠি প্রেরণ করেন
পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি
আল্লাহর রসুল মোহাম্মদের পক্ষ থেকে পারস্য সম্রাট কেসরার নামে।
সালাম সে ব্যক্তির প্রতি, যিনি হেদায়াতের আনুগত্য করেন এবং আল্লাহ তায়ালা ও তাঁর রসূলের প্রতি বিশ^াসস্থাপন করেন এবং সাক্ষ্য দেন, আল্লাহ ছাড়া এবাদতের যোগ্য কেউ নেই। তিনি এক অদ্বিতীয়, তাঁর কোন শরীক নেই, মোহাম্মদ তাঁর বান্দা ও রসূল। আমি আপনাকে আল্লাহর প্রতি আহবান জানাচ্ছি। কারণ আমি সকল মানুষের প্রতি আল্লাহর পক্ষ থেকে প্রেরিত। যারা বেঁচে আছে তাদের পরিণাম সম্পর্কে ভয় দেখানো এবং কাফেরদের ওপর সত্য কথা প্রমাণিত করাই আমার কাজ। কাজেই আপনি ইসলাম গ্রহণ কষ্পন, শান্তিতে থাকবেন, যদি এতে অস্বীকৃুতি জানান, তবে সকল অগ্নি উপাসকের পাপও আপনার ওপর বর্তাবে।

পারস্য সম্রাট ইয়েমেনের গভর্নর বাযানকে লিখে পাঠায়,

চার. রোম সম্রাট কায়সারের নামে
সহীহ বোখারীর এক দীর্ঘ হাদীসে এ চিঠির বিবরণ উল্লেখ রয়েছে। রসূল (স.) রোম সম্রাট হেরাক্লিয়াসকে যে চিঠি লিখেছিলেন, সে চিঠির বিবরণ –

পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।
আল্লাহর বান্দা ও তাঁর রসূল মোহাম্মদের পক্ষ থেকে রোম সম্রাট

হেরাক্লিয়াসের প্রতি।
সালাম সে ব্যক্তির প্রতি, যিনি হেদায়াতের আনুগত্য করেন। আপনি যদি ইসলাম গ্রহণ করেন তবে শান্তিতে থাকবেন এবং দ্বিগুণ পুরস্কার পাবেন। যদি অস্বীকরুতি জানান, তবে আপনার প্রজাদের পাপও আপনার ওপর বর্তাবে। হে আহলে কিতাব, এমন একটি বিষয়ের প্রতি আসে, যা আমাদের ও তোমাদের জন্যে একই সমান। সেটি হচ্ছে, আমরা আল্লাহ তায়ালা ব্যতীত অন্য কারো উপাসনা আনুগত্য করবো না, তাঁর সাথে কাউকে শরীক করবো না। আল্লাহ ব্যতীত আমাদের কেউ পরস্পরকে প্রভু হিসাবে গ্রহণ করবো না, যদি লোকেরা অমান্য করে তবে তাদের বলে দাও, তোমরা সাক্ষী থাকো, আমরা ইসলাম গ্রহণ করেছি।

পাঁচ. মোনযের ইবনে সাওয়ার নামে
পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।
আল্লাহর রসূল মোহাম্মদের পক্ষ থেকে মোনযের ইবনে সাওয়ার নামে।
আপনার প্রতি সালাম। আমি আপনার কাছে আল্লাহর প্রশংসা করছি, যিনি ব্যতীত এবাদাত পাওয়ার উপযুক্ত কেউ নেই। আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, মোহাম্মদ আল্লাহর বান্দা ও তাঁর রসূল।
অতপর আমি আপনাকে আল্লাহর কথা স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি। মনে রাখবেন, যে ব্যক্তি ভালো কাজ করবে সে তা নিজের জন্যেই করবে। যে ব্যক্তি আমার দূতদের আনুগত্য করবে এবং তাদের আদেশ মান্য করবে, সে ব্যক্তি আমারই আনুগত্য করেছে। যারা আমার দূতদের সাথে ভালো ব্যবহার করবে তারা আমার সাথেই ভালো ব্যবহার করেছে বলে মনে করা হবে। আমার দূতরা আপনার প্রশংসা করেছেন। আপনার জাতি সম্পর্কে আপনার সুপারিশ আমি গ্রহণ করেছি। কাজেই মুসলমানরা যে অবস্থায় ঈমান এনেছে তাদের সে অবস্থায় ছেড়ে দিন। আমি দোষীদের ক্ষমা করে দিয়েছি, আপনিও তাদের ক্ষমা করুন। আপনি যতোদিন সঠিক পথ অনুসরণ করবেন, ততোদিন আমি আপনাকে পদ থেকে বরখাস্ত করবো না। যারা ইহুদী দ্বীন অথবা অগ্নি উপাসনার ওপর কায়েম রয়েছে, তাদের জিযিয়া দিতে হবে।

ছয়. ইয়ামামার শাসনকর্তা হাওয়া বিন আলীর নামে
রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইয়ামামার শাসনকর্তা হাওযা ইবনে আলীর কাছে এই চিঠি প্রেরণ করেন
পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।
আল্লাহর রসূল মোহাম্মদের পক্ষ থেকে হাওযা ইবনে আলীর প্রতি।
সে ব্যক্তির ওপর সালাম, যিনি হেদায়াতের অনুসরণ করেন। আপনার জানা থাকা উচিত, আমার দ্বীন উট ও ঘোড়ার শেষ গন্তব্যস্থল পর্যন্ত প্রসার লাভ করবে। কাজেই ইসলাম গ্রহণ করুন, শান্তিতে থাকবেন এবং আপনার অধীনে যা কিছু রয়েছে সে সব আপনার জন্যে অক্ষুন্ন রাখা হবে।
এরপর আল্লাহর রসূলের কাছে নিম্নরুপ লিখিত জবাব দেন।
ষ্ক্রআপনি যে বিষয়ের দাওয়াত দিচ্ছেন, তার কল্যাণ ও শ্রেষ্ঠত্ব প্রশ্নাতীত। আরবদের ওপর আমার প্রভাব রয়েছে। কাজেই আপনি আমাকে কিছু কাজের দায়িত্ব দিন, আমি আপনার আনুগত্য করবো।্

সাত. দামেশকের শাসনকর্তা হারেস বিন আবী শেমার গাসসানীর নামে
রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দামেশকের শাসনকর্তা হারেস ইবনে আবু শেমার গাসৎসানীর কাছে নিনোমাক্ত চিঠি প্রেরণ করেন
পরম কষ্পণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।
আল্লাহর রসূল মোহাম্মদের পক্ষ থেকে হারেস ইবনে আবু শেমারের নামে।
সে ব্যক্তির প্রতি সালাম যিনি হেদায়াতের অনুসরণ করেন, ঈমান আনেন এবং সত্যতা স্বীকার করেন। আপনাকে আমি আল্লাহর ওপর ঈমান আনার দাওয়াত দিচ্ছি, যিনি এক অদ্বিতীয় এবং যাঁর কোনো শরীক নেই। আপনাদের জন্যে আপনাদের রাজত্ব স্থায়ীভাবে প্রতিষ্ঠিত থাকবে।
এই চিঠি আসাদ ইবনে খোযায়মা গোত্রের সাথে সম্পর্কিত সাহাবী হযরত শুজা ইবনে ওয়াহাবের হাতে প্রেরণ করা হয়। হারেসের হাতে এ চিঠি দেয়ার পর তিনি বলেন, আমার বাদশাহী আমার কাছ থেকে কে ছিনিয়ে নিতে পারে? শীঘ্রই আমি তার বিরুদ্ধে হামলা করতে যাচ্ছি। এ বদনসীব ইসলাম গ্রহণ করেনি।

আট. আম্মানের বাদশাহের নামে
রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ওয়া সাল্লাম আম্মানের বাদশাহ জেফার এবং তার ভাই আবদের নামেও একখানা চিঠি লেখেন। তাদের পিতার নাম ছিলো জুলানদি। চিঠির বক্তব্য নিম্নরুপ
পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।

আবদুল্লাহর পুত্র মোহাম্মদের পক্ষ থেকে জুলানদির দুই পুত্র জীফার ও আবদের নামে।
সালাম সে ব্যক্তির ওপর, যিনি হেদায়াতের অনুসরণ করেন। অতপর আমি আপনাদের উভয়কে ইসলামের দাওয়াত দিচ্ছি। ইসলাম গ্রহণ করুন, শান্তিতে থাকবেন। কেননা আমি সকল মানুষের প্রতি আল্লাহর রসূল। যারা জীবিত আছে তাদের পরিণামের ভয় দেখানো এবং কাফেরদের জন্যে আল্লাহর কথার সত্যতা প্রমাণের জন্যেই আমি কাজ করছি। ইসলাম গ্রহণ করলে আপনাদেরকেই শাসন ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত রাখা হবে। যদি অস্বীকরুতি জানান তবে আপনাদের বাদশাহী শেষ হয়ে যাবে। আপনাদের ভূখন্ড ঘোড়ার হামলার শিকার হবে, আপনাদের বাদশাহীর ওপর আমার নবুয়ত বিজয়ী হবে।

সূত্র: আর রাহিকুল মাখতুম, আল্লামা সফিউর রহমান মোবারকপুরি

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY