এক গুচ্ছ জনপ্রিয় না’ত : খাদিজা আখতার রেজায়ী

0
551

খাদিজা আখতার রেজায়ী রচিত এক গুচ্ছ জনপ্রিয় না’ত

এমন যদি হতো, একটা কথাই আসে মনে ঘুরে, আমার স্বপ্নে তুমি আসো, সব মানুষের প্রিয় তিনি,  এই দেহে তো,  লাব্বাায়ক, এতো কেনো কাঁদে মন, মদীনায় যাবো আজ, ঘুমুসনে চোখ,  আমার কবরে , আমি শুনেছি তার চেয়ে ,  যদি কোনো একদিন

১. এমন যদি হতো

এমন যদি হতো!
আমি হতাম সওর পাহাড়ের মাকড়শাটির মতো
যুগে যুগে ইতিহাসে থাকতো আমার নাম
নবীর সাথে আমার স্মৃতি হতো সফলকাম॥
সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম।
(সাল্লাল্লাহু আলা মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইয়ে ওয়া সাল্লাম)

এমন যদি হতো!
সঊŸঠর পাহাড়ে আমি হতাম কবুতরের মতো
নবীর নামের সাথে জুড়ে থাকতো আমার নাম
জীবন আমার ধন্য হতো হতো সফলকাম॥
সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম।
(সাল্লাল্লাহ আলা মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম)।

এমন যদি হতো
হতাম আমি মরুভূমির ধূলিকণার মতো
নবীর পায়ে চুমু খেয়ে সফল তো হতাম
নবীর পায়ে আঁকড়ে থাকা ধুল যদি হতাম
সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম॥
(সাল্লাল্লাহু আলা মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইয়ে ওয়া সাল্লাম)

২। আকাশের চাঁদ বলো দেখেছে কারা

একটা কথাই আসে মনে ঘুরে ঘুরে
বলে দেবো সে কথাটি আজ সুরে সুরে

আকাশের চাঁদ বলো দেখেছে কারা
ওরা, তারা, সবাই আর আমরা
জমিনের চাঁদ বলো দেখেছে কারা
আমরা, আমরা, শুধু আমরা
মক্কায় উঠেছে
মদীনায় ফুটেছে
ছড়িয়ে আলোর রেখা পৃথিবী জুড়ে॥

আকাশের চাঁদ অতো স্রুর নয়
ক্ষুধা পেলে কারো তাকে রুটি মনে হয়
আমার চাঁদের আলো
দুর করে সব কালো
পৃথিবীটা ভরে দিলো আল্লাহর নুরে॥

কতোটা সুবাস আছে গোলাপের গায়
কেউ আবার ঘ্রাণ নিলে হাঁচি এসে যায়
এ ফুলের সৌরভ
এনে দিলো গৌরব
খুলে দিলো শৃংখল সাম্যের সুরে॥

তার কথা মেনে চলি তারই অনুসারী
তারই পথে সবে যেনো চলতে পারি
প্রাণে আল্লাহর ভয়
এই হোক সঞ্চয়
তার পথ ছেড়ে আর রবো না দুরে॥

৩. আমার স্বপ্নে তুমি আসো

আমার স্বপ্নে তুমি আসো, শুধু একবার দেখবো তোমায়
আমি ঘুম থেকে জেগে উঠে আবার ঘুমুই
শুধুই তোমাকে দেখার আশায়
তাই দিনে রাতে শতবার দুরুদ পড়ি
এভাবেই পড়ে যাবো ইনশায়াল্লাহ
আমান্না বেরাসুলিল্লাহ! আমান্না বেরাসুলিল্লাহ!
আসসালাতু আসসালামু আলাইকা ইয়া হাবীবাল্লাহ
আসসালাতু আসসালামু  আলাইকা ইয়া রাসূলাল্লাহ
আসসালাতু আসসালামু  আলাইকা নাবীয়াল্লাহ
আসসালাতু আসসালামু  আলাইকা ইয়া খায়রা খালকিল্লাহ ॥

আবু জাহল আর আবু লাহাবেরা পড়েনি কলেমা কভূ
কতো দুশমনি করেছিলো তারা দেখেছে তোমায় তবু
শুধু একবার দেখি যদি আর ভুলবোনা কোনোদিন ইনশায়াল্লাহ ॥
আমান্না বেরাসুলিল্লাহ! আমান্না বেরাসুলিল্লাহ!

একটা নজর যদি দেখা না হলো
পৃথিবীতে এসে তবে কি লাভ বলো
চিরস্রুর তুমি যে আমি ও তোমারই তো অনুসারী
শেষ বিচারের দিনে যেনো তোমায় দেখেই চিনতে পারি
এতো অপরুপ, স্রষ্টা জানি আর কেউ নেই মাশাআল্লাহ ॥

৪. সব মানুষের প্রিয় তিনি

সব মানুষের প্রিয় তিনি আল্লাহ তায়ালার প্রিয়
সবার কাছে তাঁর সীরাতই অনুস্মরণীয় ॥

কারীমুস সাজায় জামিলুস শায়াম
নাবীয়্যুল অরায়া শাফীউল উমাম ॥

আল্লাহুম্মা ছাল্লেআলা সাইয়েদেনা মোহাম্মদ
নাবীয়ানা শাফীয়ানা মাওলানা মোহাম্মদ

তিনি ছিলেন ইয়াতিম তিনি ছিলেন অসহায়
শুরু থেকেই আল্লাহ তায়ালা ছিলেন তার সহায়
বদরের সেই বিজয় ছিলো অবিস্মরণীয় ॥

ধন্য হলো জীবন আমার পেয়ে এ পরিচয়
হয়েছি তাঁর উম্মাত আমি এই আমার সঞ্চয়
বিচার দিনে তাঁর পাশেই একটু জায়গা দিয়ো ॥

৫. এই দেহে তো

এই দেহে তো একটাই মন ছিলো
হঠাৎ করে পালিয়ে কোথায় গেলো
আহা! হঠাৎ করে কোথায় চলে গেলো
হায়! হায়! কেমন করে কোথায় চলে গেলো।

নেইতো ঘরে, নেইতো ছাদে
যায়নি মামার বাড়ি
খোঁজ নিয়েছি মিঠাইর দোকান
দেখছি গুড়ের হাড়ি
নেই কোথাও ভাবছি বুঝি সাগর পাড়ি দিলো।

রেল সড়ক আর বিমান ঘাটি, রিক্সা মোটর কার
শপিংমলের দোকান পাটেও খুঁজছি কতোবার

অবশেষে পেলাম তাকে
কাবা ঘরের কোণে
মনোযোগের সাথে বসে
কোরআন মজীদ শোনে
বলবো কি আর এমনি সবার নজর কেড়ে নিলো।

৬. লাব্বাায়ক
লাব্বাায়ক, আল্লাহুম্মা লাব্বাায়ক! লাব্বাায়ক,
লা শারীকা লাকা লাব্বাায়ক!
ইন্নাল হামদা ওয়ান নেয়ামাতা লাকা ওয়াল মুলক,
লা শারীকা লাকা লাব্বাায়ক!!

দুনিয়ার লাখো লাখো মুসলিম
আল্লাহর নামে করে তাসলিম,
কেউ ধনী কেউ আবার দীনহীন,
সবে মিলে এক সাথে একই দিন
কাবার দেয়াল ধরে
করুণ মিনতি করে
ক্ষমা পাবে জানে হোকনা গোনাহ অনেক
লাব্বাায়ক! আল্লাহুম্মা লাব্বাায়ক
লা শারীকা লাকা লাব্বাায়ক!!

দুনিয়াটা ভুলে যায় পরে এহরাম
তাকওয়ার সাথে নেয় আল্লাহর নাম
ঘুরে ঘুরে শেষ করে সাতটি তওয়াফ
দ্ুেচাখের পানি ফেলে চেয়ে নেয় মাফ
মারওয়া-সাফায় চড়ে
হেঁটে হেঁটে সায়ী করে
জমজম পান করে শান্তি অনেক
লাব্বাায়ক! আল্লাহুম্মা লাব্বাায়ক
লাব্বাায়ক লা শারীকা লাকা লাব্বাায়ক!!

আরাফাত থেকে খুব বেশী দূরে নয়
সূর্য ডোবার পরই চলে যেতে হয়
খোলা আকাশের নীচে মুযদালাফায়
আমীর ফকির মিলে রাত্রি কাটায়
মুযদালফার পরে
মাগরেব ও এশা পড়ে
সেখানে গরীব ধনী হয়ে যায় এক ….
লাব্বাায়ক! আল্লাহুম্মা লাব্বাায়ক! লাব্বাায়ক
লা শারীকা লাকা লাব্বাায়ক!!

মুযদালফায় গিয়ে পাথর কুড়ায়
পাথরের কুচি নিয়ে মীনায় দৌড়ায়
সে পাথর ছুঁড়ে ছুঁড়ে রামী করা হয়
কোরবানী করে না যে হাজী সে তো নয়!
চুল ছেঁটে কোরবানী,
বিদায়ী তওয়াফ খানি
লক্ষ মনের চাওয়া জানি সবই এক
লাব্বাায়ক! আল্লাহুম্মা লাব্বাায়ক,
লাব্বাায়ক লা শারীকা লাকা
লাব্বাায়ক! লাব্বাায়ক! আল্লাহুম্মা লাব্বাায়ক…

৭. এতো কেনো কাঁদে মন

এতো কেনো কাঁদে মন,
এমন চায় না ফিরে যেতে
চায় না এ মন আর
এর চেয়ে বড়ো কিছু পেতে ॥

যেদিন এসেছি এই কাবার শহর
খুশীতে আমার যেনো কাটেনি প্রহর
দুপুরের কড়া রোদে করতে তাওয়াফ
মন আমার উঠেছিলো মেতে ॥

রমযান মাসের এই শেষ দশদিন
ওমুরাহর তাগাদায় ছিলো কি রঙিন!
কিয়ামুল লাইল শেষে সেহরী খেয়ে
আবার ফজরে কাবা গিয়েছি ধেয়ে
ক্লান্তি আসেনি সায়ী
মারয়া সাফায়
রোযা রেখে ভীড় ঠেলে যেতে ॥

৮. মদীনায় যাবো আজ
মদীনায় যাবো আজ কোনো বাধা নেই
কাবাঘর ছেড়ে যাবো ব্যথা এখানেই ॥

লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহৎ
মুহাম্মদ রাসুলুল্লাহ
ইয়া মোহাম্মাদ হামেদুন
ইয়া মোহাম্মদ মাহমুদুন
ইয়া ইমামাল মুরছালিন
ইয়া ইমামাল কিবলাতাইন

লক্ষ সওয়াব মেলে এক রাকাতে
তাইতো নামাজে যাই রাতে বিরাতে
কাবাঘরে জামাতের কোনো জুড়ি নেই ॥

লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ
মোহাম্মদ রাসুলুল্লাহ
ইয়া মোহাম্মাদ হামেদুন
ইয়া মোহাম্মদ মাহমুদুন
ইয়া ইমামাল মুরছালিন
ইয়া ইমামাল কিবলাতাইন

মন চায় মদীনায় বারবার যাই
মাসজিদে নববীতে সময় কাটাই
সালাম জানাই তাকে দাঁড়িয়ে পাশেই ॥
কাবাঘর ছেড়ে যাবো ব্যথা এখানেই

লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহৎ
মোহাম্মদ রাসুলুল্লাহ

৯. ঘুমুসনে চোখ
ঘুমুসনে চোখ দেখ চেয়ে পথ কেমন মদীনায়
চারদিকে শক্ত পাথর পাহাড় আর পাহাড় ॥

আমার এ ‘‘বাস ফুললী এসি কমফোটেবল সীট’’
বাইরে থেকে আমার দেহে টাচ করেনা হীট
যায় মদীনায় কেউবা প্লেনে কেউ বা চড়ে কার
চারিদিকে ….. পাহাড় আর পাহাড় ॥

রাসুল যখন মক্কা ছেড়ে গেলেন মদীনায়
এই পথে তার সফর ছিলো উটের খোলা পায়
সংগী ছিলেন আবু বাকার সিষ্কিকে আকবার
চারদিকে ……. পাহাড় ॥

পেটে ছিলো ভীষণ ক্ষিধে পিছে ছিলো ভয়
মরুভূমির গরম হাওয়া যন্ত্রনাময়
খাদ্যপানি সংগে কিছুই ছিলোনা আহার
চারদিকে শক্ত পাথর পাহাড়া ও পাহাড় ॥

১০. আমার কবরে

আমার কবরে কখনো তোমরা দিয়োনা রঙিন ফুল
কখনো দিয়োনা ফুল, ফুলমালা, করোনা এ বড়ো ভুল ॥

মদীনায় গিয়ে দেখেছি ওখানে নবীর বংশধর
শান্তির সাথে নববীর পাশে শুয়ে আছেন পর পর
জান্নাতুল বাকীতে, শেরেক করেনা কেউ একচুল ॥

নবীর রওজা দেখেছি, ওখানে আছেন দ্জুন আরো
পুষ্পমাল্য রাখার সেখানে হয়নি সাহস কারো

কেউ কোনোদিন করেনা সেখানে ফুল দিয়ে সম্মান
আমার কবরে ফুল দিলে এযে হবে বড়ো অপমান!
বিজাতীয় এই রসম তোমরা করে দাও নির্মুল

১১. আমি শুনেছি তার চেয়ে স্রুর

আমি শুনেছি তার চেয়ে স্রুর কেউ ছিলোনা
আমি শুনেছি এমনি দয়ার দিল কারো ছিলোনা
তারই আগমনে এই দুনিয়াতে পূর্ণ হয়েছে দ্বীন
সাল্লেমু ইয়া কাওমু বাল সাল্লু আলা সাদরিল আমীন
মোস্তাফা মা জায়া ইল্লা রাহমাতাল্লিল আলামীন
সালাতুল্লা আলাল হাদী  মোহাম্মদ
সালামুল্লা আলাদ দায়ী মোহাম্মদ
আল্লাহুম্মা সাল্লে আলা মোহাম্মদ
ওয়ালা আলে সাইয়েদেনা মোহাম্মদ
শাসসুষ্কোহা মোহাম্মদ, বদরুষ্কোজা মোহাম্মদ
নুরুল হুদা মোহাম্মদ,
খাইরুল ওয়ার্ ামোহাম্মদ, সাল্লু আলা মোহাম্মদ

তিনি বলেছেন মেয়েদের কভূ করোনাকো অনাদর
দিওনা আঘাত তাদের মনে তাদের ভেবোনা পর
করবে তাদের আদর সোহাগ করবেনা অনাদর
মেয়েদের সাথে আসে রহমত ও বরকত সীমাহীন ॥ সাল্লেমু…….
তিনি বলেছেনÑ চলে যাবো আমি এ দ্ুেটাই রয়ে যাবে
কোরআন হাদীস যদি ফলো করো সোজা পথ পেয়ে যাবে
মুসলিম একে অন্যের ভাই ইসলাম শুধু দ্বীন ॥ সাল্লেমু……

১২. যদি কোনো একদিন

যদি কোনো একদিন সকাল বিকেল কিবা সন্ধ্যায়
দরজা খুলেই দেখো দাঁড়িয়ে আছেন যিনি আঙিনায়
বিস্ময়ে নিশ্বাস থেমে যাবে সামনে আল আমীন
আসসালাতু আসসালামু আলাইকা ইয়া শাফিয়াল মুজনেবীন
(আনতা শামসুন ইয়া মোহাম্মদ ইয়া খাতানাম নাবীয়িন,
আনতা বাদরুন ইয়া মোহাম্মদ রাহমাতাল্লিল আলামীন)

কোথায় বসাবে হায়! কি যে লজ্জা, কি যে সংসয়
দেয়ালে ঝুলানো কতো হলিউড, বলিউড ছবি ঘরময়
সেলফে সাজানো কতো ফিল্ম ডিভিডি, টেবিলে ফিলমী ম্যাগাজিন
অতিথি তোমার আজ, সামনে দাঁড়ানো সাইয়েদুল মুরছালিন ॥

করিডোর ছাড়িয়ে গেছে ব্যাস্ক সংগীত ষ্টেরিয়োর আওয়াজ
টিভিতে চলছে সিনেমা অথবা সিরিয়াল
এ মুখ কোথায় লুকাবে আজ
আজ থেকে আল্লাহকে করো ভয়, তওবা করো
মেনে চলো তার দ্বীন
তোমার সমুখে আজ আল্লাহর হাবীব রাহমাতাল্লিল আলামীন ॥

১২. যাবো যাবো করে
যাবো যাবো করে আর হয়নি যাওয়া
কাজ নিয়ে দিনরাত করেছি ধাওয়া ॥

মক্কা মদীনা যাওয়া ভেবেছি কঠিন
অবহেলা করে করে কেটে গেছে দিন
শক্তি সাহস ছিলো মনে ছিলো বল
সুস্থ্য সুঠামদেহী ছিলাম সবল
ঘুরেছি কতোনা দেশ বদলেছি হাওয়া ॥

সব কাজই হয়ে গেছে সঠিক সময়
দ্বীনের কাজেই ছিলো অবহেলা ভয়
যখনা শক্তি ছিলো যাইনি তখন
আফসোস করে আর কি পাবো এখন
চলতে পারি যা আজ বেড়েছে বয়স
হজ্জ্বের জন্যে চাই শক্তি সাহস
সীমিত আমার আজ চলা ফেরা খাওয়া ॥

See Vedio: https://www.youtube.com/watch?v=X27ff5gCFh4

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY