বিশ্ববিখ্যাত চারটি তাফসীর প্রকাশনা: বাংলা অনুবাদ

0
1412

কোরআনে প্রতিটি নির্দেশ এর পেছনে এবং প্রতিটি সূরা নাযিল হওয়ার পেছনে রয়েছে একটি ইতিহাস বা শানে নজুল রয়েছে কার্যকারণ ও তার ব্যাখ্যা এসব জানার জন্যে তাফসীর পাঠ করা উচিত। এসব বেশীরভাগ তাফসীর যদিও আরবি উর্দূতে লেখা। তথাপি ব্শ্বিবিখ্যাত তাফষীরগুলোর এখন বাংলা অনুবাদ পাওয়া যায়। যদিও বাংলা ভাষায় এখনো ব্যাপক ও পূর্নাঙ্গ তাফসীর প্রকাশিত হয়নি। 1886 সালে মাওলানা নাইমুদ্ধিন প্রথম একটি কোরআনের তরজমা প্রকাশ করেন সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যাসহ। আর মাওলানা মুহিউদ্দন খানও একটি সংক্ষিপ্ত তাফসীর প্রকাশ করেছেন। আর বিস্তারিত তাফসীর এখনো বাংলাভাষায় পূর্নাঙ্হগ প্রকাশিত হয়নি।
তাফসীর ফি যিলাযিল কোরআন মিশরের কালজয়ী কোরআন প্রতিভা সাইয়েদ কুতুব শহীদের অমরসৃস্টি। এটি বিশ্বের সর্বাধিক ভাষায় অনুদিত এবং সবাধিক পঠিত তাফসীর। সাইয়েদ কুতুব এক বিষ্ময়প্রতিভা। 22 খন্ডে 8000 পৃষ্ঠায় এই তাফসীরে সম্পাদনা করেছেন হাফেজ মুনির উদ্দীন আহমদ।একটি যোগ্য ও দক্ষ টিম কয়েকবছরের প্রচেষ্ঠার এটি অনুবাদ করতে সক্ষম হয়েছে। এই তাফসীরে হাফেজ মুনির উদ্দীন আহমদ এর বহুল প্রচারিত ও জনপ্রিয় কোরআনের অনুবাাদ ব্যবহার করা হয়েছে।

গত শতকের ক্ষণজন্ম ইসলামী চিন্তানায়ক সাইয়েদ কুতুব শহীদ-এর বিশ্ববিখ্যাত তাফসীর ‘ফী যিলালিল কোরআন’ –এর বাংলা অনুবাদ ।

‘ফী যিলালিল কোরআন’ ও তার প্রণেতা সাইয়েদ কুতুব শহীদ-এর পরিচয় আজকের ইসলামী বিশ্বে নতুন করে দেয়ার অবকাশ নেই। আমরা শুধু এটুকুই বলতে পারি যে, ইসলাম প্রতিষ্ঠার মহান সংগ্রামে শহীদ কুতুবের নাম যেমনি চিরস্মরণীয় হয়ে আছে, তেমনি তাঁর রচিত তাফসীর ‘ফী যিলালিল কোরআন’ও অনন্তকাল ধরে কোরআন অনুধাবনের ক্ষেত্রে একটি ‘মাইলফলক’ হিসেবে চিহিৃত হয়ে থাকবে।
পৃথিবীর ২৫ কোটির বেশী লোক যে ভাষায় কথা বলে, যে ভাষার স্থান বিশ্ব ভাষার দরবারে পঞ্চম, সে ভাষায় কোরআনের এই সেরা তাফসীর গ্রন্থটির অনুবাদ বহু আগেই প্রকাশ হওয়া উচিত ছিলো। বিগত দু’-তিন দশকে অনেক উৎসাহী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান এই দুরূহ কাজের একাধিক উদ্যোগও গ্রহণ করেছিলেন, কিন্তু নানা কারণে কোনো উদ্যোগই বাস্তবায়িত হতে পারেনি। আল্লাহ্ তায়ালা আমাদের মতো কতিপয় গুনাহগার বান্দাকে যে তাঁর এ মহান খেদমতের জন্যে নিবাচিত করেছেন সে জন্যে তাঁর দরবারে আবারও গভীর কৃতজ্ঞতা আদায় করি।

‘ফী যিলালিল কোরআন’ বাংলাদেশের সকলশ্রেণীর বুদ্ধিজীবিমহল ও ওলামায়ে কেরাম তখা কোরআনের পাঠকদের মাঝে যে পরিমাণ সাড়া জানাতে সক্ষম হয়েছে, তা দেখে আমরা সত্যিই আনন্দে অভিভূত হয়ে গেছি। দেশের শীর্ষস্থানীয় ইসলামী চিন্তাবিদরা এই তাফসীরটির ব্যাপারে যে মূল্যবান অভিমত প্রকাশ করেছেন, তার প্রতিটি বাক্যই উল্লেখ করার মতো।

তাফসীর ইবনে কাছীর

তাফসির ইবনে কাসির হচ্ছে কালজয়ী মুহাদ্দিস মুফাসসির যুগশ্রেষ্ঠ মনিষী আল্লামা হাফিয ইবনু কাসীরের একনিষ্ঠ নিরলস সাধনা ও অক্লান্ত পরিশ্রমের অমৃত ফল। তাফসির জগতে এ যে বহুল পঠিত সর্ববাদী সম্মত নির্ভরযোগ্য এক অনন্য সংযোজন ও অবিস্মরনীয় কীর্তি এতে সন্দেহ সংশয়ের কোন অবকাশ মাত্র নেই। এর অনব্দ্যতা ও শ্রেষ্ঠত্বকে সকল যুগের বিদগ্ধ মনীষীরা অকপটে ও একবাক্যে স্বীকার করে নিয়েছেন। তাই এই সসাগরা পৃথিবীর প্রায় প্রতিটি মুসলিম অধ্যুষিত দেশে, সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে এমনকি ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষায়তনের গ্রন্থাগারেও সর্বত্রই এটি বহুল পঠিত, সুপরিচিত,সমাদৃত এবং হাদীস –সুন্নাহর আলোকে এক স্বতন্ত্র মর্জাদার অধিকারী।

তাফসীরের জগতে একাডেমীর আরও  অবদান হচ্ছে , শায়খুল ইসলাম হযরত মওলানা শাব্বীর আহমদ ওসমানীর ‘তাফসীরে ওসমানী’ ও বরণীয় মোফাসসের মওলানা আবু সলিম মোহাম্মদ আবদুল হাই-এর ‘আসান তাফসীর’ এর বাংলা অনুবাদ।

 দাম:

তাফসীর ফি যিলালিল কোরআন 22 খন্ড: 2700 টাকা

তাফসীর ইবনে কাছীর: 1-4 খন্ড =1500 টাকা

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY