আসুন!কোরআনের কথা পৌঁছে দেই

0
336

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম
প্রিয়নবীর জীবনের দুঃখময় স্মৃতির মধ্যে ওহুদ ও ওহুদ পরবর্তী সময়গুলো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ সময় আল্লাহ তায়ালা তার প্রিয়নবীর সাথীদের দ্বীন ঈমানের দৃঢ়তার যেমন পরীক্ষা নিয়েছেন- তেমনি পরীক্ষা নিয়েছেন পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে মানুষদের কাছে কোরআনের দাওয়াত পৌঁছানোর জন্যে গৃহিত নানা কর্ম কৌশলেরও। আল্লাহ তায়ালা এই সময়ের চিত্র আঁকতে গিয়েই বলেছেন- ‘তাদের ওপর যমীন সংকুচিত হয়ে গেছে।’ আল্লাহর এ যমীন কোনোদিন সংকুচিত ছিলো না- আজও নেই- ভবিষ্যতেও থাকবে না, আল্লাহর এ যমীন- যমীনের সুযোগ সুবিধে সবটাকেই আল্লাহ তায়ালা যমীনের অধিবাসীদের জন্যে প্রসারিত করেছেন। যুগে যুগে একে সংকুচিত করেছে কতিপয় মানুষ। এই কতিপয় মানুষদের স্বেচ্ছাচারিতায় আল্লাহর এ যমীনটা আল্লাহবিশ্বাসী মানুষদের জন্যে মাঝে মাঝে সংকুচিত হয়ে ওঠে, এমন পরিস্থিতি দেখা দিলে কোরআনের সাথীদের তাদের কর্মকৌশল পরিবর্তন করে মানুষদের কাছে কোরআনের কথাগুলো পৌঁছানোর চেষ্টা করে যেতে হবে।
আল্লাহর নবী ও তাঁর নিবেদিতপ্রাণ সাথীরা সারাজীবনই এ কাজটাই করেছেন। তাদের সামনে বাধাবিপত্তি যুলুম নিপীড়ন কম আসেনি- কিন্তু তারা কি একদিনের জন্যেও কোরআনের দাওয়াত পৌঁছানো থেকে ফিরে এসেছেন? অন্যায় অনাচার, যুলুম নির্যাতন দেখে যদি তারা তাদের দায়িত্ব পালনে অবহেলা করতেন, তাহলে আজ আমরা চাইলেও দুনিয়ার মানুষদের কাছে কোরআন পৌঁছাতে পারতাম না। অর্থাৎ পৌঁছানোর মতো কোরআনের কোনো কপিই আজ আমরা খুঁজে পেতাম না। সবকিছুই হারিয়ে যেতো। আজ বিশ্বের এদিকে সেদিকে কোরআনের যতোটুকু চর্চা আছে, তা এ নিবেদিত প্রাণ সাহাবায়ে কেরামদের ত্যাগ তিতীক্ষা ও কোরবানীর বিনিময়েই সম্ভব হয়েছে।
মনে রাখতে হবে, মুসলমানদের জীবনে ওহুদ যেমন এসেছে, তেমনি এসেছে হোনায়নও। বৈষয়িক জয় পরাজয় এখানে সত্যের মাপকাঠি নয়। আজ যদি কোনো পরিস্থিতিতে আমাদের কাছে আল্লাহর যমীনটাকে সংকুচিত মনে হয়, তাহলে কঠোর ধৈর্যের সাথে আমাদের অপেক্ষা করতে হবে, অপেক্ষার সময়গুলোতেও আমাদের কোরআনের কাছে আশ্রয় নিতে হবে, আল্লাহ আমাদের সহায় হোন।
হাফেজ মুনির উদ্দীন আহমদuntitled-22

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY