প্রাকৃতিক সার ব্যবহার এবং কমলা লেবুর চাহিদা

0
148

রসূল (স.)-এর যুগে খাঁটি এবং স্বাভাবিক খাদ্যদ্রব্য মানুষ ব্যবহার করতো। অথচ বর্তমানে আমরা কৃত্রিম খাদ্য ব্যবহার করছি। কিন্তু ইউরোপীয়রা অত্যন্ত চালাক ও বুদ্ধিমান। তারা খাঁটি ও নির্ভেজাল খাদ্যদ্রব্য অনুসন্ধানে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।
পাকিস্তানের এক ভূ-স্বামীর বেশ বড়ো কমলা লেবুর বাগান রয়েছে। সেই ভূ-স্বামী আমাকে জানিয়েছেন যে, জাপানের একটি ফার্ম আমার কাছে বেশকিছু পরিমাণ কমলা লেবু রফতানী করার চাহিদা উল্লেখ করে আমাকে চিঠি লিখেছে। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, আমাদের এখানে এমন কমলা লেবুর যথেষ্ট চাহিদা, যেসব কমলা লেবুতে কৃত্রিম সার ব্যবহার করা হয়নি বরং জৈব ও প্রাকৃতিক সার ব্যবহার করা হয়েছে। কারণ, কৃত্রিম সার ব্যবহার করা কমলা লেবুতে প্রয়োজনীয় ভিটামিন থাকে না। অথচ প্রাকৃতিক সার ব্যবহার করা কমলা লেবুতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন থাকে।
sleep
ঘুম পাড়ানিয়া গান
রসূল (স.)-এর দুধবোন হযরত শায়মা ঘুম পাড়ানিয়া গান গাইতেন। তিনি যে গান গাইতেন সেটি হচ্ছে এই,
আমার জন্যে একটি ভাই এসেছে
আমার এ ভাই তার মায়ের কাছে নেই
পিতার কাছে নেই চাচার কাছে নেই
ওহে আল্লাহ তায়ালা তুমি
তার চোখে ঘুম দাও।
বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার রিপোর্ট
বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার গবেষণা রিপোর্ট থেকে জানা গেছে যে, ঘুম পাড়ানিয়া গান শিশুর চোখে তাড়াতাড়ি শুধু ঘুমই আনে না বরং এ গান শিশুর ভবিষ্যত নির্মাণেও সহায়ক ভূমিকা রাখে। যেসব শিশু মায়ের সংস্পর্শে ঘুমায় তারা ওসব শিশু যারা একা ঘুমায়, বড়ো হয়ে তাদের চেয়ে বেশী বুদ্ধিমান এবং মেধাবী হয়। যেসব শিশু মায়ের কাছে ঘুমায় তারা নিজেদেরকে অধিক নিরাপদ মনে করে। পান্তরে যেসব শিশু মায়ের সান্নিধ্য বঞ্চিত হয়ে ঘুমায়, তারা হীনমন্যতার শিকার হয়। মায়ের সান্নিধ্যে ঘুমানো শিশু আত্নবিশ্বাসী হয়ে গড়ে উঠে।
big f
বেশী সংখ্যক সন্তান
হযরত মাআকাল ইবনে ইয়াছার (রা.) বর্ণনা করেন রসূল (স.) বলেছেন, এমন নারীকে বিয়ে করবে যে নারী ভালোবাসবে এবং সন্তান প্রসব করবে। (যদি সে বিধবা হয়, তবে আগের বিয়ে দ্বারা এ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। যদি সে কুমারী হয়, তবে তার সুস্থতা এবং তার পরিবারের অন্যান্য বিবাহিত নারীর অবস্থা দেখে তার সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে।) কেননা, আমি তোমাদের সংখ্যাধিক্যের কারণে অন্য উম্মতদের ওপর গর্ব করবো। (অর্থাৎ বলতে পারবো যে আমার উম্মত সংখ্যায় বেশী)। (আবু দাউদ, নাসাঈ, হায়াতুল মুসলেমিন)
আমি যে সময় ফ্রান্স সফর করেছিলাম সে সময় একজন লোক আমার সংগে ফ্রান্স থেকে জার্মানীতে গিয়েছিলো। ফ্রান্স থেকে জার্মানীতে যাওয়ার পর সেখানে ব্যয়ের আধিক্য অর্থাৎ জীবন যাত্রার মান উচ্চ দেখে আমি তাকে পরামর্শ দিলাম যে, আপনি ফ্রান্সে ফিরে যান। কারণ, আপনার সংগে সাতটি সন্তান এবং স্ত্রী রয়েছে, জার্মানীতে এতো ব্যয় কিভাবে নির্বাহ করবেন। লোকটি বললো, অর্থ ব্যয়ের জন্যে আমি মোটেই চিন্তিত নই। কারণ আমি সন্তানদের খাদ্য, শিা ব্যয় নির্বাহের জন্যে সরকারের কাছে থেকে নিয়মিত ভাতা পাই। যার যতো বেশী সন্তান থাকবে- তার ভাতার পরিমাণও বৃদ্ধি পাবে। (ফ্রান্স থেকে জার্মানী গ্রন্থের সৌজন্যে)
সন্তান সংখ্যা হ্রাস করার শ্লোগান শুধু মুসলমানদের জন্যে? বিশেষত এশিয়ার দেশসমূহের জন্যেই কি প্রযোজ্য? এক সময় ইউরোপ সন্তান কমানোর ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছিলো। ফলে তাদের সন্তান সংখ্যা কমতে শুরু করেছিলো। এ সময় হিটলার ঘোষণা করেন, সন্তান বাড়াও, সেনাবাহিনীতে ভর্তি করো, মিত্রশক্তিকে তাড়াও।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY